রবিবার ২১ জানুয়ারী ২০১৮


সিরিয়া হামলার জেরে মুখোমুখি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া


আমাদের অর্থনীতি :
08.04.2017

আসাদুজ্জামান আকাশ: সিরিয়ার বিমানঘাঁটিতে যুক্তরাষ্ট্রের ভয়ঙ্কর ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর সিরিয়ার আকাশসীমায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে করা ‘বিমান নিরাপত্তা চুক্তি’ বাতিল করেছে রাশিয়া। শুক্রবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে  রুশ বার্তা সংস্থা স্পুটনিক নিউজ এ খবরটি জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সিরিয়ার আকাশে মার্কিন ও রুশ যুদ্ধবিমানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উভয় পক্ষ দেশটিতে হামলা চালানোর আগে অপর পক্ষকে অবগত করবে এই বিষয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছিল। তবে ট্রাম্প সিরিয়ায় অনাকাক্সিক্ষত ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে ওই চুক্তি ভঙ্গ করেছে বলে অভিযোগ করেছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালায়। তাই তারা চুক্তিটি বাতিল ঘোষণা করে দিয়েছে।

এক বিবৃতিতে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ‘সিরিয়ার আকাশে মিসাইল হামলার সময় মার্কিন ও রুশ যুদ্ধবিমানের সংঘর্ষ এড়াতে এবং বিমান নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্বাক্ষরকৃত সমঝোতা স্মারকটি বাতিল করেছে রাশিয়া।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে সিরিয়ার আল-শায়রাত বিমানঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। ওই হামলায় যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টারসহ অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঞ্চল ইদলিবে চালানো রাসায়নিক হামলার জবাবে এই হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র এই তথ্য জানিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই মারাত্মক রাসায়নিক অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের এ হামলার ব্যাপক সমালোচনা করেছে রাশিয়া। এই মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র হামলাকে ২০০৩ সালে ইরাকে চালানো বুশ প্রশাসনের হামলার স্মারক বলে উল্লেখ করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লেভরভ।

সিরিয়ার হোমস প্রদেশের আল-শায়রাত বিমানঘাঁটিতে যুক্তরাষ্ট্র ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর বিষয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের দাবি জানাবে রাশিয়া। রাশিয়ান ফেডারেশন কাউন্সিলের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তাবিষয়ক কমিটির প্রধান ভিক্টর অজেরভের বরাত দিয়ে তথ্যটি নিশ্চিত করেছে রুশ গণমাধ্যম  স্পুটনিক নিউজ।

শুক্রবার মার্কিন হামলার বিষয়ে অজেরভ স্পুটনিক নিউজকে জানান, রাশিয়া ওই হামলার জবাবে প্রথমে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের দাবি জানাবে। যুক্তরাষ্ট্রের এ হামলাটি জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে মার্কিন আগ্রাসন বলে বিবেচনা করা হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অজেরভ বলেন, ‘ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা ঝুঁকিতে রয়েছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার ঘোলাটে সম্পর্ক আরও অবনতির দিকে গেছে।’

সিরিয়ার সশস্ত্র বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলাটিকে খুবই নেতিবাচক উদাহরণ বলে উল্লেখ করেন তিনি। আর ওই হামলাটি জেনেভা চুক্তিসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক চুক্তিকে প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছে বলেও যোগ করেন। হামলাটি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার সম্পর্ককে আরও অবনতির দিকে নিয়ে যাবে বলেও ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। স্পুটনিক নিউজ, সম্পাদনা: এম রবিউল্লাহ