শুক্রবার ২৫ মে ২০১৮


ডিভিশনে খালেদা জিয়া যেসব সুবিধা পাবেন


আমাদের অর্থনীতি :
14.02.2018

সুজন কৈরী : আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া গত রোববার কারাগারে প্রথম শ্রেণির ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দির মর্যাদা পেয়েছেন। কারাগার সূত্র বলেছে, কারা বিধিমালার ৬১৭ বিধি অনুযায়ী প্রথম শ্রেণির বন্দি হিসেবে তার সাধারণ সরঞ্জামাদি হিসেবে একটি চেয়ার, একটি টেবিল, রাত ১০টা পর্যন্ত ব্যবহারের জন্য একটি লাইট, খাবার জন্য মেলামাইনের বাসন, একটি আয়রন খাট, একটি তোশক, দুটি করে বালিশ ও বেডশিড, ৪টি বালিশের কভার, প্রয়োজন অনুযায়ী এক বা দুটি কভারসহ কম্বল, একটি মশারি এবং একটি ছোট হাত আয়না ও চিরুনি থাকবে। এছাড়া একটি টুথব্রাশ, টুথপেস্ট, সাবান, স্লিপারের ক্যাপ, প্রয়োজন হলে জায়নামাজ, তোয়ালে থাকবে। নিজ খরচে বন্দির স্বাভাবিক অভ্যাস ও কারাগারের আবাসনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হিসেবে অন্যান্য আসবাবপত্র, বিছানা, বাসন-কোসন, চুলের তেল ও টয়লেটে ব্যবহারের সামগ্রী নেয়া যাবে।

জেলকোডে প্রথম শ্রেণির ডিভিশন পাওয়া বন্দিদের জন্য নির্দিষ্ট ড্রেস কোড উল্লেখ নেই। ডিভিশন-১ পাওয়া বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নিজের পছন্দের পোশাক পরতে পারবেন। তবে রাজনৈতিক প্রতীকযুক্ত পোশাক পরা যাবে না। ১১৬৫ নম্বর বিধি অনুযায়ী, নারী কারাবন্দিদের জন্য ৩টি শাড়ি, ২টি সুতির ব্লাউজ, ২টি সেমিজ  এবং ২ জোড়া সুতির মোজা দেবেন কারা কর্তৃপক্ষ। শীত বা বর্ষাকালে ১টি সুতির ব্লাউজ, ১টি উলের ব্লাউজ, ২টি ফ্লানেল সেমিজ, ২ জোড়া সুতির মোজা দেবে। পোশাক পর্যাপ্ত ও ব্যবহারের যোগ্য হতে হবে এবং আপত্তিকর হবে না। সময়ে সময়ে নিজ খরচে অতিরিক্ত পোশাক সংগ্রহ করতে পারবেন। বন্দির শরীর ও পোশাক পরিষ্কারের জন্য সাবান দিতে হবে। তবে বন্দি নিজের কাপড় পরিষ্কারে অভ্যস্ত না হলে বিনা খরচে পোশাক নিয়মিত পরিষ্কারের জন্য সিনিয়র জেল সুপার বা সুপার ব্যবস্থা করবেন।

১০৭৪ কারা বিধিতে বর্ণিতÑ বই, ম্যাগাজিন ও পত্রিকা ছাড়াও নোটবুক এবং পেন্সিল বা কলম ব্যবহার করতে দেওয়া যাবে। অনুশীলন বই বিদ্যালয়ের সাধারণ নোটবুকের মতো হবে এবং পৃষ্ঠা নম্বর দিতে হবে। কোনো পৃষ্ঠা হারানো গেছে কিনা মাঝে-মধ্যে পরিদর্শন করতে হবে। চিঠি লেখার কাজে কোনো পাতা ব্যবহার করা যাবে না। প্রথম শ্রেণির বন্দি চুল ছাটাইয়ের জন্য কারা নাপিতের সুবিধা পাবেন।

সূত্র জানায়, নির্ধারিত খাবার পাবেন। তবে সাধারণ নিষেধাজ্ঞা ও পরীক্ষাপূর্বক সিনিয়র সুপার বা সুপারের বিবেচনায় বন্দিরা নিজ খরচে একই ধরনের জিনিস গ্রহণ করতে পারবেন। মেডিকেল অফিসারের আদেশে মদ বা যে কোনো ধরনের ওষুধ জাতীয় দ্রব্য নিজ খরচে সরবরাহ দেওয়া যাবে। সম্পাদনা : হাসিবুল ফারুক চেšধুরী