বুধবার ২৩ মে ২০১৮


সমাজের ৫৬% লোকই কি পিছিয়ে আছে?


আমাদের অর্থনীতি :
11.04.2018

দীপ্ত শাহরিয়ার

আমি এটার সাথে একমত যে, সমাজের অনগ্রসর জাতিকে সমাজে যারা এগিয়ে আছে, তাদের সমক্ষ করার জন্য কোটা পদ্ধতি চালূ করা হয়েছিল। আমিও চাই পিছিয়ে পরা মানুষ গুলো এগিয়ে আসুক। কিন্তু আমার প্রশ্ন হল, সমাজের ৫৬% লোকই কি পিছিয়ে আছে? মুক্তিযোদ্ধা কোটা চালু হয়েছে, মুক্তিযোদ্ধাদের দেশের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম, আত্মত্যাগের প্রতিদান স্বরুপ। কিন্তু যারা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তারা কি আদৌ এ সুযোগটা পাচ্ছে ? কিছু ক্ষমতাশালী লোক রাজনৈতিক ক্ষমতার জোড়ে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সেঁজে এ সুযোগটা কাজে লাগাচ্ছে। আমাদের আন্দোলনটা মুলতঃ তাদের বিরুদ্ধে। নারীদের জন্য কোটা রাখা হয়েছিল, নারীদেরকে পুরুষের সাথে সমান তালে এগিয়ে আনার জন্য। কিন্তু আমার প্রশ্ন হল, যে সরকার নিজেই নারীদের সমান অধিকার দিয়েছে, যে সরকার বলতেছে নারীরা এগিয়েছে, তাহলে সেই সরকার কেন এখনও নারীদের জন্য ১০% কোটা রেখেছে ? এখন যদি বলি নারীদের জন্য কোটা রাখা হয়েছে, তাদের এগিয়ে নিয়ে আসার জন্য। তাহলে সরকার যে বলল নারীরা এগিয়েছে, তাহলে তারা কোন দিক দিয়ে এগোলো ? প্রতিবন্ধীদের জন্য যে কোটা রাখা হয়েছে সেটা ঠিক আছে। কারণ, তারা জন্ম থেকেই শারিরিক প্রতিবন্ধী, একজন সুস্থ মানুষের সাথে তাল মেলানো তার একার পক্ষে সম্ভব হয় না। তাই তার একটু সহযোগিতা দরকার হয়। উপজাতিদের ও কিছুটা সহযোগিতা করা যেতে পারে। কিন্তু তাই বলে মেধাবীদের বাদ দিয়ে পিছিয়ে থাকা মানুষকে এগিয়ে আনার জন্য যদি এ কোটা চলতেই থাকে তাহলে দেশ কোন দিকে এগোবে, সেটাও ভেবে দেয়ার  বিষয়। কোটার অনুপাত মেধাবীদের থেকে কম হওয়া উচিত। তাহলে যারা পিছিয়ে আছে তারাও এগোবে, আর যারা মেধাবী তারাও মূল্যায়িত হবে।

পরিচিতি : শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়/মতামত গ্রহণ : এইচ. এম. মেহেদী/সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ