রবিবার ২৪ জুন ২০১৮


অসময়ে চলে গেলেন তাজিন আহমেদ


আমাদের অর্থনীতি :
23.05.2018

রাজু আনোয়ার: হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ছোটপর্দার দর্শকনন্দিত অভিনেত্রী সদা হাস্যোজ্জ্বল তাজিন আহমেদ (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে তাজিন তার উত্তরার বাসাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে দ্রুত উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে বিকেল সাড়ে ৪টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ৪৩ বছর বয়সী এ অভিনেত্রী।

তাজিনের মৃত্যু খবর নিশ্চিত করে অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম বলেন, আমরা ৩টার দিকে খবর পেয়েছি তাজিন আহমেদ হার্ট অ্যাটাক করেছেন। যখন তার হার্ট অ্যাটাক হয় তখন বাসায় কেবলমাত্র একজন মেকাপ আর্টিস্ট ছিলেন। তিনিই তাজিনকে উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

তাজিন আহমেদের মারা যাওয়ার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন চিত্রনায়ক রিয়াজ, রওনক হাসান, নির্মাতা বদরুল হাসান সৌদ, সকাল আহমেদ, হুমায়রা হিমু, জাকিয়া বারী মম,  অভিনেত্রী জেনীসহ তার সহকর্মীরা। এভাবে হঠাৎ তাজিনের চলে যাওয়া মেনে নিতে পারেনি তার বন্ধু-সহকর্মীরা ।

অকাল প্রয়াত অভিনয় শিল্পী তাজিন আহমেদের দাফন সম্পন্ন হবে আজ। নাট্যদল আরণ্যকের প্রধান মামুনুর রশীদ আমাদের অর্থনীতিকে জানান, মঙ্গলবার রাতে তাজিন আহমেদের মরদেহ রাখা হবে কুর্মিটোলা সিএমএইচ হাসপাতালের হিমঘরে। তাজিনের মায়ের উপস্থিতি নিশ্চিত করার পর তার দাফন সম্পন্ন হবে।

নির্মাতা সকাল আহমেদ  জানান , আজ বাদ আসর নামাজে জানাযা শেষে বাবার কবরের পাশে বনানী কবরস্থানে তাকে সমাহিত করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে দাফনের স্থান নির্ধারণে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি স্বজনরা।

নোয়াখালীতে জন্ম নেওয়া গুনী অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর করেন। সাংবাদিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ভোরের কাগজ, প্রথম আলোসহ বিভিন্ন পত্রিকায়। আনন্দ ভুবন ম্যাগাজিনের কলামিস্টও ছিলেন তিনি। পরে মার্কেন্টাইল ব্যাংকে পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তাজিনের মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। মায়ের হাত ধরেই অভিনয় জগতে প্রবেশ করেন তিনি। ‘নাট্যজন’ নাট্যদলের হয়ে মঞ্চে কাজ শুরু করলেও ২০০০ সালে আরণ্যকে যোগ দেন। অল্পসময়ে টিভি অভিনেত্রী হিসেবে জনপ্রিয় তাজিনের ছোটপর্দায় যাত্রা শুরু হয় দিলারা জলি রচিত ও শেখ নিয়ামত আলী পরিচালিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে। ব্যাক্তিগত জীবনে সঙ্গীত শিল্পী ও পরিচালক রুমি রহমানকে বিয়ে করলেও শেষ জীবনটা একাকী কাটছিল তার।